লাইফ স্টাইলশিক্ষাসারাদেশস্বাস্থ্য

যে লক্ষণগুলো দেখা দিলে বুঝবেন,আপনার ব্রেন টিউমার হয়েছে।

ব্রেন টিউমারের নাম শুনলেই সবাই আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়েন। এই রোগে হতে পারে মৃত্যুঝুঁকিও। এক্ষেত্রে মস্তিষ্কের ভেতরে বেড়ে ওঠা টিউমার ক্যানসার বা নন ক্যানসার কোষ বেড়ে যায়। এই টিউমার শুধু মস্তিষ্কেও হতে পারে আবার শরীরের অন্য অংশে তৈরি হয়ে মস্তিষ্কে ছড়াতে পারে।

ব্রেন টিউমারের কয়েকটি ধরন আছে। কত দ্রুত টিউমারটি বেড়ে উঠছে, কোন অংশে হয়েছে, স্নায়ু কতটা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, টিউমারটি ক্যানসারাস কি না ইত্যাদি বিষয় দেখার পরই চিকিৎসকরা রোগীর চিকিৎসা করেন।

বিশেষজ্ঞদের মতে, এই রোগ প্রাথমিক পর্যায়ে ধরা পড়লে নিরাময়যোগ্য। না হলে ক্যানসার পুরো মস্তিষ্কের কোষে ছড়িয়ে পড়লে রোগীর মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে।

তাই সামান্য কিছু লক্ষণ দেখলেও চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিত। এজন্য সবারই জেনে রাখা উচিত, ব্রেন টিউমারের উপসর্গ কী কী। যদিও ব্রেন টিউমারের লক্ষণ কেমন হবে বিষয়টি রোগীভেদে বদলে যায়।

এছাড়াও টিউমারটি কোথায় হয়েছে, স্নায়ু ক্ষতিগ্রস্ত করেছে কি না ইত্যাদি বিষয়গুলির উপর নির্ভর করে দেখা দেয় উপসর্গ। তবে ব্রেন টিউমারে আক্রান্ত বেশিরভাগ রোগীর ক্ষেতেই দুটি উপসর্গ আছে যা নিয়মিত দেখা দিতে পারে।

এ দুটি লক্ষণ হলো- প্রচণ্ড মাথাব্যথা ও মাথায় অতিরিক্ত চাপের জন্য নিজেকে অসুস্থ মনে হওয়া। অনেকেই মাথাব্যথাকে সাধারণ ভেবে দীর্ঘদিন মুঠো মুঠো ওষুধ খান। আর এদিকে ব্রেন টিউমার থেকে ক্যানসার ছড়িয়ে পড়ে মস্তিষ্কের বিভিন্ন কোষে। তাই মাথাব্যথাকে সাধারণ ভেবে এড়িয়ে যাবেন না।

ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিসের তথ্য মতে, এই মাথা ব্যথার ধরন সাধারণ মাথা ব্যথার চেয়ে আরও কষ্টদায়ক। এক্ষেত্রে খুব ব্যথা হয়। এমনকি ব্যথা প্রতিদিনই হতে পারে। তাই মাথাব্যথাকে সামান্য ভেবে ওষুধ খেয়ে দমিয়ে রাখবেন না। চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

বেন টিউমারের আরও লক্ষণসমূহ-

>> চোখে ঝাপসা দেখা
>> মুখের স্বাদ চলে যাওয়া
>> কাঁপুনি দেওয়া
>> মৃগী
>> হাতের বা শরীরের একদিক অবশ হয়ে যাওয়া
>> ভারসাম্য রক্ষা করতে না পারা। চলতে গিয়ে পড়ে যাওয়া ইত্যাদি।
>> বুঝতে না পারা
>> ব্যক্তিত্বে বদল
>> অজ্ঞান হয়ে যাওয়া
>> বমি পাওয়া বা বমি হওয়া ইত্যাদি।

ব্রেন টিউমারের ঝুঁকি কাদের বেশি?

>> বেশিরভাগ সময়ই দেখা গেছে ষাটোর্ধ্ব বা তারও বেশি বয়সে মানুষ এই সমস্যায় আক্রান্ত হচ্ছেন।
>> ব্রেন এক্স রে, সিটি স্ক্যান, রেডিওথেরাপি বেশি মাত্রায় হলেও এ রোগের ঝুঁকি বাড়ে।
>> জিনগত রোগ যেমন- স্কেলেরোসিস, টার্নার সিনড্রোম, টাইপ ১ ও টাইপ ২ নিউরোফাইব্রোম্যাটোসিস আছে এমন ব্যক্তিদের।
>> পরিবারে এই রোগে কেউ আক্রান্ত হলে।
>> পুরুষরা নারীদের চেয়ে এ রোগে বেশি ভোগেন।
>> মাথায় আঘাত পান যারা।

ক্যনসারডটনেটের তথ্য মতে, ২০২০ সালে বিশ্বব্যাপী আনুমানিক ৩ লাখ ৮ হাজার ১০২ জনের প্রাথমিক মস্তিষ্ক বা মেরুদণ্ডের টিউমার নির্ণয় করা হয়।

অন্যদিকে বিশ্বব্যাপী ২০২০ সালে প্রাথমিক ক্যানসারযুক্ত মস্তিষ্ক ও সিএনএস টিউমারে মৃত্যুবরণ করেছেন ২ লাখ ৫১ হাজার ৩২৯ জন।

Related posts

শিশুর জন্য দুধ-‘সাবুদানা’খুবই পুষ্টিকর খাদ্য, এটি শর্করা বা কার্বোহাইড্রেট সমৃদ্ধ খাবার।

Asma Akter

গোসল করতে বন্ধুদের সঙ্গে নদীতে গিয়েছিল, ফিরলো লাশ হয়ে

Asma Akter

কানাডা দ্বিগুণ করলো শিক্ষার্থীদের জন্য খরচ

Megh Bristy

Leave a Comment