খেলা

বিশ্বকাপ ট্রফি ঘিরে মিরপুরে উৎসব

আসন্ন ওয়ানডে বিশ্বকাপের ট্রফি রবিবার মধ্যরাতে বাংলাদেশে এসেছে। পরদিন পদ্মা সেতুতে এই ট্রফির ফটোসেশন হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে এটি দেশের ‘হোম অব ক্রিকেট’ খ্যাত মিরপুর শেরোবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আনা হয়। স্বপ্নের এই ট্রফি ছোঁয়ার সুযোগ পেয়েছেন বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের সদস্যরা ও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনসহ পরিচালকরা।
আপাতত ওয়ানডে দলের কোনো অধিনায়ক নেই। সম্ভাব্য অধিনায়ক সাকিব আল হাসান কিংবা সহঅধিনায়ক লিটন কুমার দাসও অনুপস্থিত। তাই অভিজ্ঞ মুশফিকুর রহিমের হাতেই এটি বহন করে ডায়াসে তোলার সুযোগ পান। এরপর সেই ট্রফি নিয়ে মিরপুরে রীতিমতো উৎসবের আমেজ শুরু হয়ে যায়। ক্রিকেটারদের পর অবশ্য ট্রফিটি নিরাপত্তার স¦ার্থে কাচের বক্সে ভরে বিসিবির মিডিয়া সেন্টারের সামনের চত্বরে রাখা হয় সাবেক ক্রিকেটার, গণমাধ্যমকর্মী ও সাবেক ক্রিকেটার, নারী ক্রিকেট দল এবং ক্রিকেট সংশ্লিষ্ট অন্যদের জন্য। প্রায় সাড়ে ৩ ঘণ্টা মিরপুরে অবস্থান করার পর ট্রফি নিয়ে যাওয়া হয়। আজ এটি রাজধানীর ব্যস্ততম শপিং মল বসুন্ধরা শপিং সেন্টারে সকাল ১১টা থেকে সর্বসাধারণের জন্য প্রদর্শনী হিসেবে রাখা হবে।
ড্রেসিংরুম থেকে মুশফিক মুখ ভর্তি হাসি নিয়ে হাতে করে বিশ^কাপের সোনালি ট্রফি বহন করে মূল মাঠে প্রবেশ করেন। স্টেডিয়ামের মাঠে স্থাপন করা পোডিয়ামে ট্রফিটি স্থাপন করেন মুশফিক। এরপর অনুশীলনের প্রস্তুতি নিতে থাকা ক্রিকেটাররা এগিয়ে যান পোডিয়ামের দিকে। ট্রফি সামনে রেখে  কোচিং স্টাফ, ক্রিকেটারদের নিয়ে করা হয় ফটোসেশন। ফটোসেশন করে অনুশীলনে যোগ দেন অনেকেই। কিন্তু মঞ্চেই থেকে যান তাসকিন আহমেদ, তানজিম হাসান সাকিব, শামীম হোসেন পাটোয়ারী, তানজিদ হাসান তামিম ও রিশাদ হোসেন। ৩ বছর আগে যুব বিশ^কাপ শিরোপা হাতে তোলা শামীম এই ট্রফিকে কাছে পেয়ে চুম্বন এঁকে দেন।

তাসকিন ট্রফি ছুঁয়ে এদিক-ওদিক করে স্বপ্নের এই শিরোপাটিকে খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে দেখেন। ক্রিকেটাররা সেলফি তোলা শেষ করতেই মঞ্চে ডেকে নেওয়া হয় মুশফিক, তাসকিন ও জাতীয় দলের স্পিন বোলিং কোচ রঙ্গনা হেরাথকে। আইসিসির ট্রফির বিশ্ব ভ্রমণের আয়োজনের অংশ হিসেবে সাক্ষাৎকার দেন এই তিনজন, তাদের প্রশ্ন করেন আইসিসির কন্টেন্ট ক্রিয়েটররা। এক প্রশ্নের উত্তরে বাংলাদেশ দলের অভিজ্ঞতার বিষয়টি উল্লেখ করেন মুশফিক। তাসকিন বাংলাদেশ দলের পেস বিভাগের প্রশংসা করেন। তিনি বলেন, ‘আসলে এটা শুনতে খুব আনন্দের যে আমাদের ফাস্ট বোলাররা ভালো করছে এবং এই ফাস্ট বোলারদের উন্নতির জন্য সর্বশেষ কিছু বছর আমরা কঠোর পরিশ্রম করছি।

সামনে আরও উন্নতির লক্ষ্যে কষ্ট করে যাচ্ছি যেন, সামনে আরও ভালো কিছু করতে পারি। আসন্ন বিশ্বকাপেও আমরা খুব আশাবাদী যে ভালো কিছু হবে, ইনশাআল্লাহ।’ এরপর মাঠের মাঝখানে ট্রফির ফটোসেশন হয় এবং ছবি তোলেন মিরপুর স্টেডিয়ামের মাঠকর্মীরা। ট্রফিটি  নেওয়া হয় মিডিয়া প্লাজায়। সেখানে ছবি তোলার সুযোগ দেওয়া হয় জাতীয় নারী দল, অনূর্ধ্ব-১৯ দল ও বিকেএসপির ক্রিকেট বিভাগের ছাত্রদের। সংবাদ সংগ্রহ করতে হাজির হওয়া সংবাদকর্মীরাও ছবি তোলেন ট্রফির সঙ্গে।

বিশ^কাপে বিশেষ কিছুর আশা ‘ভাগ্যবান’ মুশফিকের
২০০৭ বিশ^কাপে প্রথমবার খেলেন মুশফিকুর রহিম।  সেবার হাবিবুল বাশারের নেতৃত্বে খেলেছেন। এরপর দীর্ঘ সময় দলকে নেতৃত্ব দিলেও ওয়ানডে বিশ^কাপে সেই সুযোগ হয়নি মুশফিকের। তাই বিশ^কাপ ট্রফি সবার আগে ছুঁয়ে ফটোসেশন কিংবা সংবাদ সম্মেলন করার সুযোগও পাননি। এখন নেতৃত্ব থেকে অনেক দূরে গিয়েও মঙ্গলবার সেই সুযোগ প্রথমবার পেয়েছেন অভিজ্ঞ মুশফিক। এই মুহূর্তে ওয়ানডে অধিনায়ক কেউ নেই এবং সম্ভাব্য অধিনায়ক হিসেবে আলোচনায় থাকা সাকিব আল হাসান কিংবা সহঅধিনায়ক লিটন কুমার দাসও নেই।

যদিও বয়সে সবচেয়ে বড় মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ উপস্থিত ছিলেন, তবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তার চেয়েও ৩ বছর আগে যাত্রা শুরু করা মুশফিকের হাতেই উন্মোচিত হয় ট্রফি এবং মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে স্থাপিত পোডিয়ামে রাখেন আসন্ন ওয়ানডে বিশ^কাপের ট্রফিটি। এ সময় নিজেকে ভাগ্যবান দাবি করে মুশফিক দলের সম্ভাবনা নিয়ে বলতে গিয়ে আশাবাদ জানিয়েছেন বিশেষ কিছু করার।
আইসিসির কন্টেন্ট ক্রিয়েটরের সঙ্গে বিশ^কাপ নিয়ে বাংলাদেশ দলের বিষয়ে কথা বলেন মুশফিক। ৪ বিশ^কাপ খেলা মুশফিক এ সময় বলেন,‘অভিজ্ঞতা অবশ্যই বড় একটি বিষয়। তবে কাগজে-কলমে যতই ভালো হই না কেন, নির্দিষ্ট দিনে যারা ভালো খেলবে তারাই জিতবে। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মনে হয়  যে, আমি অনেক ভাগ্যবান যে শেষের ৪টি বিশ্বকাপ খেলেছি। এবারও যদি  খেলার সুযোগ পাই, তাহলে অবশ্যই চাইব যে গত ৪টা বিশ্বকাপ যেমন ফল  পেয়েছি তারচেয়ে যেন অনেক অনেক ভালো করতে পারি। আমাদের সেই শক্তিমত্তা আছে, সেই বিশ্বাসটা আছে। আমার মনে হয়, এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ  যেন আমরা ভালোভাবে শুরু করি।’

নিজেদের শক্তিমত্তা এবং দলকে নিয়ে আশাবাদী হওয়ার বিষয়টি নিয়েও বলেছেন মুশফিক। তিনি আরো বলেছেন, ‘ওয়ানডেতে আমরা যেহেতু অভিজ্ঞ দল ও গত ৪-৫ বছর ধরে ধারাবাহিক  খেলছি, তো অবশ্যই আশা তো করাই যায় যে, অনেক ভালো একটা ‘বিশেষ’  কোনো ফলাফল করব।’ এই আসরে বেশ কয়েকজন তরুণ ক্রিকেটার প্রথমবারের মতো খেলবেন। কারো কারো জন্য এটি মাত্র দ্বিতীয় বিশ^কাপ। তাদের নিয়ে মুশফিক বলেছেন, ‘আমার মনে হয়, এটা অবশ্যই অনেক বড় একটা সুযোগ তাদের জন্য। কারণ তারা গত যে কয়টা বছর খেলেছে, এরকম বড় কোনো ইভেন্টে খেলেনি। তবে তারা যেভাবে গত ২-৩টা বছর পারফর্ম্যান্স করেছে, তারা যদি এই পারফর্ম্যান্স ধরে রাখতে পারে, তাহলে আমার মনে হয়- যেটা বললাম অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান আছে এবং যারা গত ২-৩ বছর ধারাবাহিকতা ধরে রেখেছে, ইনশাআল্লাহ তাদের পারফর্ম্যান্সে এবার আমাদের রেজাল্ট অনেক ভালো হবে।’

Related posts

ভাঙছে মেয়েদের সাফজয়ী দল, আসল কারণ কী 

Rishita Rupa

ইংল্যান্ড শিবিরে প্রথম ওভারেই আঘাত সাকিবের

admin

ক্রিকেট খেলার সময় বজ্রপাতে তরুন ক্রিকেটারের মৃত্যু 

Rishita Rupa

Leave a Comment