খেলা

ভাঙছে মেয়েদের সাফজয়ী দল, আসল কারণ কী 

মাঝখানে কেটেছে আট মাস। এই সময়ে বাংলাদেশের নারী ফুটবল দেখে ফেলেছে মুদ্রার অন্য পিঠও। সাফজয়ী নারী দলকে নিয়ে উন্মাদনার সেই গল্প যেন এখন ধূসর অতীত। একে একে দল ছাড়ছেন খেলোয়াড়েরা। ক্যাম্প থেকে বাদ পড়ে ফুটবলকেই বিদায় বলে দিয়েছিলেন সাফজয়ী দলের সদস্য আনুচিং মগিনি ও সাজেদা খাতুন। ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে সিরাত জাহান স্বপ্নার ফুটবল ছাড়ার দিনই নারী ফুটবলের সফল কোচ গোলাম রব্বানীর স্বেচ্ছায় বিদায়ের ঘোষণা। সর্বশেষ খবর, ক্যাম্প ছেড়ে বাড়ি চলে গেছেন ডিফেন্ডার আঁখি খাতুনও।

শোনা যাচ্ছে, বিয়ে করে আঁখি চলে যাবেন চীনে। হবু বর চীনে থাকেন। তাঁর সহায়তায় চীনের একটি একাডেমিতে ওঠার কথা আঁখির। যদিও বাফুফেকে মায়ের অসুস্থতার কথা বলে গেছেন। কিন্তু কবে ফিরবেন, বলে যাননি। বাংলাদেশের ফুটবলে আঁখি–অধ্যায় তাই শেষই বলা যায়। মেয়েদের ফুটবলের প্রতীক হয়ে ওঠা কোচ গোলাম রব্বানীও আজ আনুষ্ঠানিকভাবে বাফুফেকে পদত্যাগের কথা জানাবেন। অবস্থা যা, বিদায় বলতে পারেন আরও বেশ কজন মেয়ে। কোচিং স্টাফের সদস্যরাও স্বস্তিতে নেই। টেকনিক্যাল ডিরেক্টর পল স্মলির খবরদারিতে তাঁরা কাজ না–ও করতে পারেন, নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক সদস্য বলেছেন এমন কথাই।

একটা সাজানো বাগান যেন তছনছ হতে চলেছে। কিন্তু কেন? উঠছে নানা প্রশ্ন। সাবিনা খাতুনেরা তো আরও অনেক কিছু জয়ের প্রতিশ্রুতি জাগিয়েছিলেন। তাঁরাই কেন এখন বিমুখ হয়ে পড়েছেন? বাংলাদেশের বাস্তবতায় একটা সময় মেয়েদের বিয়ের ব্যাপারটা সামনে চলে আসে। পরিবারের চাওয়া মেনে মেয়েরা খেলা ছেড়ে যাবেন, সেটা অস্বাভাবিক নয়। বাফুফের এখানে আসলে করার কিছু নেই। কিন্তু স্বপ্না–আঁখিদের চলে যাওয়াকে ‘ওদের বিয়ে হয়ে যাচ্ছে’ বলে বাফুফের সরলীকরণ বাস্তবতাকে আসলে পাশ কাটানোই। দলীয় সূত্রের দাবি, নানা কারণে ক্যাম্পে থাকা মেয়েরা হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়েছেন। তাঁরা অবসাদে ভুগছেন। খেলাবিহীন আর কত বসে থাকা যায়! সামনে দেখছেন না কোনো আশার আলো।

সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ জয়ের আট মাস পেরিয়ে গেলেও জাতীয় নারী দল আর কোনো ম্যাচ খেলার সুযোগ পায়নি
সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ জয়ের আট মাস পেরিয়ে গেলেও জাতীয় নারী দল আর কোনো ম্যাচ খেলার সুযোগ পায়নিছবি : বাফুফে

সেপ্টেম্বরে সাফ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পর প্রায় আট মাস কোনো ম্যাচ নেই। বাড়েনি খেলোয়াড়দের বেতনও। ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগও অনিশ্চিত। সব মিলিয়েই হতাশায় নারী ফুটবলাররা।

গত সেপ্টেম্বরে নেপালে সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ জেতার পর আট মাস চলে যাচ্ছে। লম্বা এই সময় খেলাবিহীন কাটিয়েছে জাতীয় দল। বাফুফে মিয়ানমারে অলিম্পিক বাছাই খেলতে জাতীয় দল পাঠায়নি টাকা নেই কারণ দেখিয়ে। মিয়ানমার যাওয়ার কথা যখন চলছিল, দুটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলার কথা ছিল, সেটাও হয়নি। তড়িঘড়ি ফিফা প্রীতি ম্যাচ খেলতে সিঙ্গাপুরে দল পাঠাতে চেয়েও শেষ পর্যন্ত পারেনি বাফুফে। ‘না’ বলেছে সিঙ্গাপুর।

মেয়েরা আশার জাল বুনেছিলেন ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগ ঘিরে, যেখানে খেললে তাঁরা কিছু টাকা পেতেন। পাঁচ তারকা হোটেলে ঘটা করে এর লোগো-বল উন্মোচন করে এখন আয়োজকেরা নিশ্চুপ। এ মাসে টুর্নামেন্টটি হওয়ার কথা থাকলেও তা নিয়ে কিছু বলছে না বাফুফে। সবকিছু না গুছিয়েই প্রচার চালানো হয়েছে। আগামী মাসে লিগটা হবে বলা হচ্ছে এখন, কিন্ত দৃশ্যমান অগ্রগতি নেই। মেয়েরা নাকি রোজ রোজ অনুশীলনে গিয়ে কোচদের কাছে প্রশ্ন তোলেন, ‘স্যার, খেলা না হলে এত অনুশীলন করে লাভ কী!’

ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগের জন্য ভারতে ঘরোয়া লিগে উড়িষ্যা দলে খেলতে যাওয়ার অনুমতি পাননি স্বপ্না। তখন তাঁকে বলা হয়েছিল, ‘ভারতে যাওয়ার দরকার নেই, ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগে খেলো।’ ফ্র্যাঞ্চাইজি ফুটবলে তিনি ছিলেন আটজন আইকনের একজন। প্রস্তাবিত পারিশ্রমিক ছিল চার লাখ টাকা। কিন্তু লিগই তো হবে কি না ঠিক নেই, এক কানাকড়িও পাননি স্বপ্না। পাননি কেউই। এসব কারণে স্বপ্না মন খারাপ করে ফুটবলই ছেড়ে দিয়েছেন।

নারী দলের বহু সাফল্যের কারিগর কোচ গোলাম রব্বানী আজই আজ আনুষ্ঠানিকভাবে বাফুফেকে পদত্যাগের কথা জানাবেন
নারী দলের বহু সাফল্যের কারিগর কোচ গোলাম রব্বানী আজই আজ আনুষ্ঠানিকভাবে বাফুফেকে পদত্যাগের কথা জানাবেনছবি : বাফুফে

সাফ জেতার পর প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী মেয়েদের মাসিক বেতনও কি বেড়েছে? এক টাকাও বাড়েনি। অধিনায়ক সাবিনা খাতুন মাসে পান ২০ হাজার টাকা। বাকিরা ১০ হাজার টাকার আশপাশে। সেই ‘সামান্য টাকাও’ এপ্রিল থেকে বকেয়া। এই যখন অবস্থা, মেয়েরা তাহলে আর কিসের আশায় পরিবার ছেড়ে পড়ে থাকবেন বাফুফে ভবনে? সেই হতাশারই প্রতিফলন দলে এমন ভাঙন।

গোলাম রব্বানীর বিদায়ের কথা শোনার পর পরশু সিনিয়র মেয়েদের নিয়ে বসেছিলেন বাফুফে সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন। সেখানে তিনি স্পনসর পাওয়া সাপেক্ষে এ বছর বেতন বাড়ানোর কথা বলেছেন। কিন্তু এই আশ্বাসে মেয়েরা আর আস্থা রাখতে পারছেন না। বেতন বৃদ্ধি, ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগ, জুলাইয়ে মঙ্গোলিয়ার সঙ্গে ফিফা প্রীতি ম্যাচ খেলার আশ্বাস…কোনো কিছুই মেয়েদের মন ভোলাতে পারছে না। তাঁরা আর আস্থাই রাখতে পারছেন না বাফুফের কথায়।

সাফ জয়ের পর মেয়েদের বেতন বাড়ানোর আশ্বাস দিলেও বাস্তবায়ন করেনি বাফুফে
সাফ জয়ের পর মেয়েদের বেতন বাড়ানোর আশ্বাস দিলেও বাস্তবায়ন করেনি বাফুফেছবি : শামসুল হক

বাফুফে সভাপতি অবশ্য মেয়েদের এভাবে চলে যাওয়াকে জীবনেরই নিয়ম বলছেন। একের পর এক মেয়ের বিদায়ে কাজী সালাউদ্দিন গতকাল প্রথম আলোকে বলেছেন, ‘পুরোনো গেলে নতুন আসবে। এটিই সাধারণত হয়। কাজেই আমি এটাকে ভাঙন বলব না। তা ছাড়া যার যার জীবনে সিদ্ধান্ত তার। আমরা কাউকে আটকাতে পারি না। আমি বিচলিত নই। আমাদের পাইপলাইনে খেলোয়াড় আছে। শূন্যস্থান পূরণ হয়ে যাবে।’

হয়তো তা হবে, হয়তো হবে না। কিন্তু এত দ্রুত একটা সফল অধ্যায়ের সমাপ্তির ইঙ্গিত দেশের নারী ফুটবলের জন্যই এক অশনিসংকেত।

Related posts

মোস্তাফিজকে হারাতে হবে বলে মন খারাপ ধোনিদের

Mehedi Hasan

টিভিতে দেখুন আজকের খেলা, ২ মার্চ ২০২৪

Asma Akter

ভুতুরে সব গা-ছমছমে খেলা

Rubaiya Tasnim

Leave a Comment